GoomZoom
Nonstop Entertainment

“মানুষের করের টাকায় ভালই ঘুরছেন!” বাবার পাওয়া কেন্দ্রীয় সরকারের গাড়িতে ভিডিও করার জন্য কটাক্ষের মুখে অ্যাংরি দিদি

সোশ্যাল মিডিয়ায় মজার ভিডিও বানিয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন ঊর্ণা বন্দ্যোপাধ্যায় ওরফে অ্যাংরি দিদি।মজার ছলে রেগে রেগে কথা বলে ভিডিও তৈরি করেন তিনি।আর তাতেই মজেছেন নেট নাগরিকরা। গত বছর লক ডাউন পরেই তিনি প্রকাশ্যে আসেন। এই মুহূর্তে তার অনুগামী ২ লক্ষের কাছে।

তবে বর্তমানে তিনি বেশ ক্ষোভের মুখে পড়েছেন। তাকে নিয়ে বিরক্ত অনেকেই। অভিযোগ বর্তমানে ভিডিও না বানিয়ে বরং লোক দেখানো বেশি হচ্ছে। সম্প্রতি তিনি একটি ভ্লগ পোস্ট করেন।

যেখানে তার মাকে নিয়ে নিউমার্কেটে বেশ কিছু কেনাকাটা করতে গিয়েছিলেন তাদের গাড়িতে করে। অল্প সময়ের এই ভিডিওর মধ্যে দিয়ে মা ও মেয়ের খুনসুটির বিভিন্ন মুহূর্ত ধরা দেয়। কিন্তু বিপত্তি বাদে অন্য জায়গায়। তার গাড়িতে গভর্মেন্ট অফ ইন্ডিয়া লেখা বোর্ড দেখে ক্ষোভের মুখে পড়েন তিনি। নেট নাগরিকরা বেজায় চটেছেন।

একজন ক্ষুব্ধ হয়ে লেখেন, ‘ফ্যাশনের জন্য কেনাকাটা করতে কেন্দ্রীয় সরকারের গাড়ি নিয়ে যাচ্ছেন? আপনার বাবার এতে ক্ষতি হতে পারে।’ অন্য একজনের অভিযোগ, ‘অ্যাংরি দিদি সুন্দর সুন্দর বিষয়ে ভিডিয়ো বানানো থেকে সরে গিয়ে দেখনদারিতে বেশি মন দিয়েছেন।’ চরম কটাক্ষ করে তিনি বলেন একজন ক্ষুব্ধ হয়ে লেখেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকারের গাড়িতে! মানুষের করের টাকায় ভালই ঘুরছেন।’ আরেক জনের প্রশ্ন, ‘এটা কি অফিস থেকে পাওয়া গাড়ি নাকি ব্যক্তিগত গাড়ি?’
একাধিক মন্তব্য ধেয়ে এসেছে তার দিকে। যদিও এই নিয়ে চুপ তিনি।

তবে সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে তিনি জানান “আমি এই কথাটা বারবার বলি। আমরা যদি এত নেতিবাচক জিনিসপত্র নিয়ে ভাবনাচিন্তা করি, তা হলে হয় তো আর ভিডিয়োই বানাতে পারব না। আমি বুঝতে পারিনি এইটুকু একটা ব্যাপার নিয়ে এত কিছু হয়ে যাবে।”

কিন্তু সরকারি গাড়িতে করে কি কেনাকাটা করতে যাওয়াটা উচিত? এটাতো কেন্দ্রীয় সরকারের দেওয়া গাড়ি সরকারি কাজে ব্যবহার হয়।

এই ধরনের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন “গাড়িটা আমার বাবা কিনেছেন। সুতরাং সেটা আমাদের পরিবারের গাড়ি। অনেকে আমাকে জিজ্ঞাসা করছেন, আমি কোন যোগ্যতায় ওই গাড়ি চড়ছি। নিজের বাবার কেনা গাড়ি চড়তে কি আমাকে সরকারি চাকরি করতে হবে? আমি বুঝতে পারছি না।”

যদিও নেট মাধ্যমে এই ধরনের ট্রোলিং নিয়ে খুব বেশি মাথা ঘামাতে নারাজ তিনি কারণ তিনি মনে করেন তার খ্যাতির মাধ্যমেই এই ধরনের ট্রোলিং তৈরি হয়েছে।এটাই প্রথমবার নয় এর আগে পোশাক নিয়ে তাকে বিভিন্ন ধরনের ট্রোলিং এর সম্মুখীন হতে হয়েছে ।

তবুও তিনি একেবারেই নিশ্চুপ থাকেন কেন ? এর উত্তরে তিনি জানান “আমি যদি কিছু বলতে যাই, লোকজন বলবে আমি নিজেকে খুব বড় কিছু একটা মনে করছি। তাই চেষ্টা করি চুপ করে থাকার। কে কী বলল, সেটা নিয়ে এত মাথা ঘামাই না”।

Comments
Loading...
error: Content is protected !!