GoomZoom
Nonstop Entertainment

১৪ বছর পর নিজের অপমানের জবাব দিলেন ভাস্বর, রুদ্রনীলকে সরাসরি তোপ অভিনেতার

রাজ্যে শেষ হয়েছে ভোটের লড়াই। দীর্ঘদিনের লড়াইয়ের ইতি ঘটেছে গত ২রা মে। ফের একবার রাজ্যে ক্ষমতায় এসেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। ভোটের এই উত্তেজনার মধ্যেই নানান তারকাদের মধ্যেও তৈরি হয়েছে নানান কারণে ক্ষোভ। তা রাজনৈতিক হতে পারে বা অরাজনৈতিক। এই ভোটের আবহে রুদ্রনীল ঘোষের নাম বারবার উঠে এসেছে। এবার ফের একবার তাঁর নামে উঠে এল শিরোনামে, তবে এবার তা সম্পূর্ণ অরাজনৈতিকভাবেই।

ভবানীপুর থেকে বিজেপির হয়ে ভোটে দাঁড়ান রুদ্রনীল। কিন্তু সেখান থেকে দাঁড়িয়ে গো-হারা হেরেছেন তিনি। এর আগে তিনি ছিলেন তৃণমূলের ঘনিষ্ঠ। তারও আগে বাম রাজনীতির সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন অভিনেতা। এই দল বদলের রাজনীতির জেরে বিভিন্ন মহলেই তীব্র সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে রুদ্রনীলকে। এবার এই নিয়ে মুখ খুললেন টলিউডের ভাস্বর চট্টোপাধ্যায়।

অতীতে কোনও এক সাক্ষাৎকারে রুদ্রনীল একসময় বলেছিলেন, “ভাস্বর একটা মিচকে শয়তান”। ১৪ বছর পরও সেই কথা ভোলেন নি অভিনেতা ভাস্বর চট্টোপাধ্যায়। এবার সুযোগ বুঝে রুদ্রনীলকে তাঁর দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের কথামতো কার্যত ‘রগড়ে’ দিলেন ভাস্বর।

প্রায় ১৪ বছর পর নিজের সেই অপমানের জবাব দিলেন ভাস্বর। রুদ্রনীলকে তীব্র তোপ দেগে তিনি বলেন, “আমি আর যাই-ই হই, তোর মতো ধান্দাবাজ নই। তুই বড় মাপের অভিনেতা। কিন্তু কী জানিস তো, অভিনেতা হোক বা নেতা, আগে ভালো মানুষ হতে হয়”।

সোশ্যাল মিডিয়ায় রুদ্রনীলকে একটি খোলা চিঠি লিখে ভাস্বর আরও বলেন যে, তিনি এতদিন মিডিয়াতে কিছু বলেননি। কিন্তু আজ তার বলার সময় হয়েছে। ভাস্বর এও বলেছেন, এই হার যদি রুদ্রকে ভালো মানুষ হয়ে উঠতে সাহায্য করে। ভাস্বরের যুক্তি, তিনি চট করে কাউকে নিয়ে কোনও মন্তব্য করেন না। কারণ, মানুষ চিনতে সারা জীবন লেগে যায়। তাই অকারণে তাঁকে কেউ অপমান করলে ছেড়ে কথা বলেন না। অভিনেতার পোস্টে রুদ্রের বিরুদ্ধে নানান মন্তব্যের বন্যা বয়ে গিয়েছে।

Comments
Loading...