GoomZoom
Nonstop Entertainment

রিয়্যালিটি শো থেকে প্লেব্যাক কিং, কেমন ছিল অরিজিৎ সিং-এর চলার পথ, জন্মদিনে অদেখা কিছু মুহূর্ত

অরিজিৎ সিং (Arijit Singh), নামটা সকলের কাছেই অত্যন্ত পরিচিত। বলিউড হোক বা টলিউড, অরিজিৎ সিং-এর গান পছন্দ নয় এমন হয়ত কেউ নেই। সঙ্গীত দুনিয়ার এক উজ্জ্বল নক্ষত্র তিনি। তবে অরিজিৎ বরাবরই নিজের ব্যক্তিগত জীবনকে ক্যামেরার প্রচার থেকে দূরেই রাখেন। মুর্শিদাবাদের এই ছেলেটি একেবারেই মাটির মানুষ। তিনি সংবাদমাধ্যমকে এড়িয়ে চললেও তাঁর ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে সাধারণ মানুষের কৌতূহলের শেষ নেই। আজ তাঁর ৩৪-তম জন্মদিনে ফিরে দেখার পালা কিছু অদেখা মুহূর্তের।

বিখ্যাত এই নক্ষত্র জন্মগ্রহণ করেন ১৯৮৭ সালের ২৫শে এপ্রিল মুর্শিদাবাদের জিয়াগঞ্জে। তাঁর বাবা পাঞ্জাবী হলেও, মা বাঙালি। এই কারণে ছোটো থেকেই বাংলার প্রতি টান রয়েছে তাঁর। বাংলা ভাষা, বাংলা গান, সবই রপ্ত তাঁর। ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনা নয়, বরং গানের প্রতি মোহ ছিল তাঁর বেশি। তিন বছর বয়স থেকেই শুরু হয় তাঁর সঙ্গীত চর্চা। এরপর ধ্রুপদী সঙ্গীত থেকে শুরু করে রবীন্দ্র সঙ্গীত, ক্লাসিক্যাল, এমনকি পপ গানের তালিম নিয়েছেন তিনি। ছোটো থেকেই গুলাম আলি খাঁ, জাকির হুসেন, উস্তাদ রশিদ খান, আনন্দ চট্টোপাধ্যায়ের মতো দিকপাল সঙ্গীত শিল্পীরাই হয়ে ওঠেন তাঁর আদর্শ।

এরপর জনসমক্ষে আত্মপ্রকাশ ২০০৫ সালে ‘ফেম গুরুকুল’ নামের রিয়্যালিটি শো-য়ে। যদিও এখানে জয়ী হতে পারেননি তিনি। ষষ্ঠ হয়েছিলেন। কিন্তু তবুও হার মানেননি। নিজেকে প্রতিষ্ঠা করার অদম্য ইচ্ছাশক্তিই তাঁকে আজ বিশ্বজোড়া খ্যাতি দিয়েছে।

এই রিয়্যালিটি শো থেকে প্রাপ্ত টাকা দিয়েই মুম্বইতে রেকর্ডিং স্টুডিও খোলেন অরিজিৎ। সঙ্গীত প্রযোজনার পাশাপাশি করেছেন রেডিও, বিজ্ঞাপনে সঙ্গীত পরিচালনার কাজও। কেরিয়ারে প্রথম ব্রেক পান ২০১১ সালে ‘মার্ডার টু’ ছবিতে ‘ফির মহব্বত করনে চলা’ গান দিয়ে।

এরপর ‘আশিকী টু’ ছবিতে ‘তুম হি হো’ গানের মাধ্যমেই তিনি খ্যাতিলাভ করেন। এই গানের জন্য পেয়েছিলেন ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডসও। এরপর তাঁকে আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি। একের পর এক হিত গান উপহার দিয়েছেন তিনি দর্শককে। একাধিক বিখ্যাত পরিচালকের সঙ্গে গান করেছেন তিনি। সঞ্জয় লীলা বনশালির ছবি ‘রাম লীলা’-তে ‘লাল ইশক’ হোক বা ইমতিয়াজ আলির ছবি ‘তামাশা’-র ‘কিউ কি তুম সাথ হো’, সব গানেই মুগ্ধ হয়েছেন আপামর জনতা।

২০১৩ সালে প্রথম বিয়ে করেন অরিজিৎ সিং। এরপর ডিভোর্সের পর ২০১৪ সালে কাউকে না জানিয়ে তারাপীঠে গিয়ে ছেলেবেলার বান্ধবী কোয়েল রায়কে বিয়ে করেন অরিজিৎ। কোয়েলের প্রথম পক্ষের সন্তানকেও আগলে রাখেন অরিজিত। অরিজিৎ ও কোয়েলের দুই সন্তান রয়েছে। তিন সন্তানকে নিয়ে হাসিখুশি পরিবার তাঁর।

Comments
Loading...
error: Content is protected !!